Sunday, January 29, 2023
Homeখবর এখননীতীশের 'দুয়ারে' প্রশান্ত কিশোর সাক্ষাতের কারন নিয়ে মুখ খুললেন পি.কে..

নীতীশের ‘দুয়ারে’ প্রশান্ত কিশোর সাক্ষাতের কারন নিয়ে মুখ খুললেন পি.কে..

 প্রতিনিধি:-

 নীতীশের দুয়ারে প্রশান্ত কিশোর ৪৫ মিনিটের বৈঠক ও প্রাক্তন জেডিইউ সদস্য পিকে-এর স্বীকারোক্তিতে উত্তাল বিহারের রাজ্য রাজনীতি। পটনার মসনদে বদল হতেই কি বদল এল পিকে এর মনেও? জল্পনার ঝড়ে প্রশ্ন বাণের মুখে দাপুটে রাজনৈতিক স্ট্র্যাটেজিস্ট। অবশেষে বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের সঙ্গে সাক্ষাতের কারণ নিয়ে মুখ খুললেন প্রশান্ত কিশোর।নীতীশ কুমারের পুরনো সঙ্গী প্রশান্ত কিশোর । একসময় জনতা দল ইউনাইটেড-এরই অংশ ছিলেন তিনি। ২০২০ সালে দল বিরোধী কাজের অভিযোগে তাঁকে বহিষ্কার করেন পার্টি সুপ্রিমো নীতীশ কুমার । আসলে সে সময় Ipac-এর প্রতিষ্ঠাতা জেডিইউ সহ বিজেপি, আম আদমি পার্টি, তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে চুক্তি করে বিভিন্ন রাজ্যের বিধানসভা ভোটে ভোট কুশলী হিসেবে কাজ করছিলেন তিনি। স্বার্থের সংঘাতের কারণেই সেসময় জেডিইউ থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত বলে মনে করে রাজনৈতিক মহল। তারপর থেকেই এই দুই রাজনৈতিক ব্যক্তির সম্পর্ক আদায় কাঁচকলায় বলেই জানে রাজনৈতিক মহল। তবে ১৩ সেপ্টেম্বর দুজনের আচমকা বৈঠক পটনার রাজনৈতিক মহলে একাধিক জল্পনার জন্ম দিয়েছে।সম্প্রতি বিজেপির সঙ্গে জোট ভেঙে RJD-এর সঙ্গে জোট গড়ার সময়েও একের পর এক কটাক্ষভরা উক্তি শোনা গিয়েছে প্রশান্ত কিশোরের মুখে। কিন্তু আচমক ১৩ সেপ্টেম্বর বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের বাড়ি যান পিকে। পরে জেডিইউ সুপ্রিমোর সঙ্গে ৪৫ মিনিট বৈঠকের কথাও স্বীকার করে নেন তিনি। তবে কী রাজনৈতিক রঙ্গমঞ্চে ফের পরিবর্তন? হাত মেলাচ্ছেন নীতীশ পিকে?

সমস্ত জল্পনা উড়িয়ে অবশেষে মুখ খুললেন পিকে। আইপ্যাক প্রতিষ্ঠাতা বলেন, ”এটা একটা সৌজন্য বৈঠক ছিল। নীতীশ কুমার বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। আমি মে মাস থেকে বিহারে আছি। তখন থেকেই ওঁর সঙ্গে দেখা করতে চাইছিলাম কিন্তু তা সম্ভব হয়নি। তাই একবার সৌজন্যের খাতিরে দেখা করতে গিয়েছিলাম।”একই সঙ্গে দাপুটে রাজনৈতিক কৌশলবিদের দাবি, নীতীশ কুমারকে নিয়ে তাঁর ভাবনা বা মত কোনওটাই পরিবর্তন হয়নি অন্তত বিহারের রাজনীতিতে। তবে একইসঙ্গে তিনি জোর দিয়ে বলেন, ব্যক্তিগত বা প্রফেশনাল ক্ষেত্রে কোনও কাজ থাকলে ওঁর সঙ্গে অবশ্যই যোগাযোগ রাখব। জানা গিয়েছে, বৈঠকে গত চার-পাঁচ মাসে বিহারের রাজনীতি নিয়ে নিজের পর্যবেক্ষণ তিনি নীতীশকে জানিয়েছেন।

যদিও রাজনৈতিক মহলের মতে, আগুন ছাড়া ধোঁয়া হয় না। নীতীশ-পিকে সাক্ষাৎকে শুধু সৌজন্য সাক্ষাৎ মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা। ২০২৪-এর আগে এই সাক্ষাৎ ফের নয়া রাজনৈতিক সমীকরণের আভাস দিচ্ছে বলে মত পটনার।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Skip to toolbar