Tuesday, January 31, 2023
Homeখবর এখননবান্নের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান 'অসহযোগিতার' অভিযোগ জানিয়ে বিস্ফোরক বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী..

নবান্নের আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান ‘অসহযোগিতার’ অভিযোগ জানিয়ে বিস্ফোরক বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী..

 প্রতিনিধি,মুক্তিযোদ্ধাঃ নবান্নের  আমন্ত্রণ প্রত্যাখ্যান করলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী । রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব বিরোধী দলনেতাকে চিঠি দিয়ে সোমবার বেলা একটায় মানবাধিকার কমিশন-সহ অন্য দুই নিয়োগের ব্যাপারে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। এদিন শুভেন্দু অধিকারী বৈঠকে না যাওয়ার কারণ হিসেবে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলেছেন।নবান্নের বৈঠকে না যাওয়ার কারণ হিসেবে শুভেন্দু অধিকারী এদিন টুইট করে বলেছেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অসহযোগিতা এবং মাননীয় রাজ্যপাল কর্তৃক জারি করা নির্দেশনা না মেনে চলার কারণে এদিন তিনি রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, লোকাযুক্ত এবং রাজ্য তথ্য কমিশনার নিয়োগের জন্য নবান্নের ডাকা বৈঠকে তিনি যাবেন না।বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী টুইট করে জানিয়েছেন, নবান্নের বৈঠকে হাজির থাকতে তাঁকে যে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল তাতে ভুল ছিল। ডকুমেন্টেশন শেয়ার না করা এবং মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান, লোকাযুক্ত এবং তথ্য কমিশনার নিয়োগে জন্য নোটিশ সংশোধন করতে ব্যর্থতার কথা টুইটে তিনি উল্লেখ করেছেন। মর্যাদার সঙ্গে আপস করার অভিযোগের পাশাপাশি ছলচাতুরির অভিযোগও করেছেন তিনি। প্রসঙ্গত তাঁকে পাঠানো আমন্ত্রণ পত্রে রাজ্যপালের অনুরোধে তাঁকে ডাকার কথা উল্লেখ করা হয়েছিল। আমন্ত্রণ পত্র পেয়েই তিনি জানিয়েছিলেন ভুল সংশোধন না করলে তিনি বৈঠকে যোগ দেবেন না এর জন্য সময়সীমাও বেঁধে দিয়েছিলেন। বলেছিলেন বৃহস্পতিবার বিকেলের মধ্যে সংশোধিত চিঠি পাঠাতে হবে। রাজ্য সরকার সেই আমন্ত্রণ পত্র সংশোধন করেনি, তাই তিনি বৈঠকে অংশগ্রহণ করছেন না।মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান নির্বাচন ছাড়াও লোকয়ুক্ত এবং তথ্য কমিশনার নিয়োগের জন্য তিনজনের কমিটি রয়েছে। সেখানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও রয়েছেন বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় এবং বিরপোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এইধরনের পরে নিয়োগে রাজ্যের বিরোধী দলনেতার উপস্থিতি জরুরি।এর আগে বিধানসভায় মানবাধিকার কমিশনেপ চেয়ারম্যান, লোকাযুক্ত এবং তথ্য কমিশনার নিয়োগের জন্য বৈঠক হয়েছিল বিধনসভায়। সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না শুভেন্দু অধিকারী। সেই বৈঠকে নেওয়া বেশ কয়েকটি নাম-সহ প্রস্তাব রাজ্যপালের কাছে পাঠানো হলে, তাতে তিনি অনুমোদন দেননি। যার জেরে নিয়োগ প্রক্রিয়া আটকে রয়েছে। সেই পরিস্থিতিতে এই তিন ক্ষেত্রে নিয়োগ প্রক্রিয়া দ্রুত শেষ করতে চায় রাজ্য সরকার। তারই তোড়জোড় শুরু হয়েছে।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Skip to toolbar