Friday, January 27, 2023
Homeখবর এখনস্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানালেন সিএএ অর্থ‍্যাৎ নাগরিকত্ব সংশোধন আইন কিন্তু ভারতীয়দের অধিকার কাড়বে না..

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানালেন সিএএ অর্থ‍্যাৎ নাগরিকত্ব সংশোধন আইন কিন্তু ভারতীয়দের অধিকার কাড়বে না..

 প্রতিনিধি:-

 আরও একবার কেন্দ্রের বক্তব্যে উঠে এল সিএএ প্রসঙ্গ। সম্প্রতি দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধন আইন, সিএএ হল একটি সীমিত এবং সংকীর্ণভাবে তৈরি করা আইন যা নির্দিষ্ট দেশের কিছু নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের জন্য একটি সুস্পষ্ট কাট-অফ তারিখ সহ নাগরিকত্ব দেওয়ার বিষয় নিয়ে তৈরি করা হয়েছে৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের বার্ষিক প্রতিবেদন অনুসারে বলা হয়েছে যে সিএএ-এর মাধ্যমে কোনও ভারতীয়ের নাগরিকত্ব কাড়া হবে না৷ বরং কিছু নিপিড়িত শ্রেণির মানুষকে নাগরিকত্ব দেওয়ার পদ্ধতিকে সহজ করার প্রচেষ্টা হল নাগরিত্ব সংশোদন আইন৷প্রসঙ্গত, ২০১৯ সিএএ সালে প্রণীত হয়েছিল কিন্তু এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। এই আইনের মাধ্যমে আফগানিস্তান, বাংলাদেশ, পাকিস্তানে নিপিড়ীত অত্যাচারিত হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পার্সি এবং খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সদস্যদের নাগরিকত্ব প্রদান করার প্রচেষ্টা করে সরকার৷ সরকার এই আইনটি প্রণয়ন বিক্ষোভের সূত্রপাত হয়েছিল। যার ফলে দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০০ জন নিহত হয়। বিক্ষোভকারীরা দাবি করেছিল যে আইনটি সংবিধান লঙ্ঘন করেছে কারণ এটির লক্ষ্য ধর্মের ভিত্তিতে ভারতীয় নাগরিকত্ব প্রদান করা, এবং সেটিও মুসলিমদের বাদ দিয়ে।২০২০-২১ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বার্ষিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিএএ হল একটি সীমিত এবং সংকীর্ণভাবে তৈরি করা আইন যা নির্দিষ্ট দেশগুলির নির্দিষ্ট সম্প্রদায়গুলিকে একটি স্পষ্ট কাট-অফ তারিখ সহ নাগরিকতার ক্ষেত্রে একটি শিথিলতা প্রদান করে। এটি একটি সহানুভূতিশীল এবং উন্নত আইন।’ এই প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, সিএএ ভারতীয় নাগরিকদের জন্য প্রযোজ্য নয় এবং তাই কোনভাবেই এই আইনের মাধ্যমে ভারতীয়দের অধিকার হরণ হবে না। পাশাপাশি নাগরিকত্ব আইন ১৯৫৫-এ প্রদত্ত যে কোনও শ্রেণির যে কোনও বিদেশীর দ্বারা ভারতীয় নাগরিকত্ব অর্জনের বর্তমান আইনি প্রক্রিয়াটিকে খুব কার্যকর এবং সিএএ কোনও উপায়ে এটিকে সংশোধন বা পরিবর্তন করে না৷সুতরাং, যে কোনও দেশ থেকে যে কোনও ধর্মের মানুষ রেজিস্ট্রেশন বা ন্যাচারালইজেশন ( প্রাকৃতিককরণল) এর মাধ্যমে আইনে প্রদত্ত যোগ্যতার শর্তগুলি পূরণ করার পরে ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে থাকবেন৷ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আদিবাসী ও আদিবাসীদের সুরক্ষা দেওয়ার জন্য সংবিধান ষষ্ঠ তফসিলের অধীনে বিশেষ বিধান দিয়েছে সিএএ তার কোনরূপ পরিবর্তন করবে না। সংবিধানের ষষ্ঠ তফসিলের অধীনে থাকা এলাকাগুলি এবং বেঙ্গল ইস্টার্ন ফ্রন্টিয়ার রেগুলেশন ১৮৭৩-এর অধীনে ইনার লাইন পারমিট সিস্টেমের আওতায় থাকা এলাকাগুলিকে সিএএ-এর আওতা থেকে বাদ রাখা হয়েছে৷ কেন্দ্র স্পস্টই জানিয়েছে, সিএএ উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলির আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে সংবিধান দ্বারা প্রদত্ত সুরক্ষাকে প্রভাবিত করে না।

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

Skip to toolbar